ছত্রাকের ডাইরি - বইয়ের প্রচার

বইয়ের প্রচার

Phoolsojja-Rajkumar-Mahato-Published-Book-Bengali-popular-blog-bengali-story-blog-ছত্রাক-রাজকুমার-মাহাতো-প্রকাশিত- বাংলা-বই-জনপ্রিয়-বাংলা-ব্লগ

বাংলা বইয়ের প্রচার কেমন হওয়া উচিৎ? ঠিক কতটা প্রচার করতে হয় একজন নতুন লেখক অথবা একজন নতুন প্রকাশককে? বাংলা বই অনলাইনে পাওয়ার লিঙ্কগুলো শেয়ার করতে হয় কিভাবে?

আচ্ছা, ধরুন আপনি নতুন লেখক অথবা লেখিকা। আপনার অতটা নামডাক নেই ব‌ইপাড়ায় অথবা সাহিত্যিক/ পাঠক দের সাথে ওঠাবসাও নেই সেইভাবে। তো, এখন যদি আপনি একটা ব‌ই লেখেন সেটা পাঠক মহল জানবে কি করে?

🤔
হ্যা হ্যা জানি রে বাবা জানি। ব‌ইপোকাতে রিভিউ দেখে অথবা আপনি জানাবেন ব‌ইটার সম্বন্ধে অথবা প্রকাশকের দু একটা পোস্ট দেখে কয়েকজন জানবে। 👍

এই চিন্তা ভাবনা নিয়ে আমারও বসবাস। কিন্তু এখন চিন্তা ভাবনাটা বদলাচ্ছে। যখন দেখছি কয়েকজন বেশ নামী প্রকাশক ও লেখকেরাও নিজেদের ব‌ইয়ের বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন সাজিয়ে গুছিয়ে, বেশ আকর্ষণীয় করে। একদিন দুদিন নয় বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে। 🙄

প্রথম দিকে এসব দেখলে কেমন একটা হত। ভাবতাম, সাহিত্যের আবার বিজ্ঞাপন হয় নাকি? সে তো সাধনা। কিন্তু যত গভীরে যাচ্ছি। ব্যাপারটা পরিষ্কার হচ্ছে। অনেকটা স্বচ্ছ হচ্ছে। বুঝতে শিখেছি। 😳

একজন লেখক লেখেন তার পরিশ্রম দিয়ে। আরে ভাই, রাম শ্যাম যদু মধু যাই লিখুক। তাতেও তার একটা সময়, একটা আত্মবলিদান যুক্ত থাকে।

একজন প্রকাশক শুধু সাহিত্যকে বাঁচাতে গিয়ে বই প্রকাশ করেননা। তাতে তার রোজগার, তার পেটের ভাত যুক্ত থাকে। ❤️

অবশ্যই সাহিত্য একটা সাধনা। কিন্তু সেটি সাধনার সাথে কারও পেটের ভাত, কারোর ঘর ভাড়া, কারোর পোশাক আবার কারোর মূল পুঁজি।

অনেক বড় বড় ডায়লগ শুনবেন। আমি ভালোবেসে লিখি, আমার টাকার দরকার নেই। আমি সাহিত্যকে ভালোবাসি তাই প্রকাশ করি ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু পেটে যখন ভাত থাকবে না। সাহিত্য কোথায় থাকবে? 🤔

মানিক বন্দোপাধ্যায় বলেছিলেন " দেখো হে, এই বাংলায় ডাল ভাতের জোগাড় ছেড়ে কেউ যেন সাহিত্য করতে না যায়।" 🙏❤️🙏

তাই, ব‌ইয়ের প্রচারটা নিছক হাস্যরস অথবা এলেবেলে‌ ভাবে নেবেন না। আর পাঁচটা জিনিসের মত ব‌ইও কিন্তু আসলেই একটা পণ্য। ভুলে গেলে চলবে না। এই ধরুন যারা সিনেমা বানায়। তারা এদিক ওদিক গিয়ে, tv তে বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রচার করেন। তার মানে এই নয় তারা শিল্পটাকে ভালোবাসেন না। শ্রদ্ধা করেন না। আমি এমন অনেক সিনেমা অথবা ব‌ই দেখেছি। যাদের প্রচারের অভাবে তারা চাপা পরে গেছে। কিন্তু বিশ্বাস করুন। সেগুলো এক একটা মাইলস্টোন। ❤️

কথায় বলে " প্রচার আর ভাগ্যে পরস্পর পরস্পরের পরিপূরক।" তাই বাংলা সাহিত্যের প্রচার আরও বেশি‌ বেশি দরকার।‌ সেটি প্রকাশক করুক অথবা লেখক/লেখিকা। আর ভাগ্য সে নাহয় তার হাতেই থাক। 🙏

মনে রাখবেন, যেটা লিখলাম আমার মত হাজার হাজার নতুন লেখক অথবা প্রকাশকের মনের কথা। কিন্তু তেঁতো কথা বলার সাহস ক্ষমতা অথবা মানসিকতা সবার থাকে না। একটা ভয় কাজ করে জানেন তো, যদি পাঠকমহলে বদনাম হয়ে যাই। যদি আমার গোনাগুনতি কয়েকজন পাঠক‌ও আমাকে ছেড়ে চলে যান। কিন্তু আজ জানিনা কেন সেই ভয়টা আর কাজ করছে না। লিখতে মন চাইল লিখে দিলাম। ❤️

কারোর খারাপ লাগলে খুব দুঃখিত এবং ক্ষমাপ্রার্থী 🙏

"ফুলশয্যা" ব‌ইটি এখনও পাওয়া যাচ্ছে। না সংগ্রহ করে থাকলে করবেন। পড়বেন, জানাবেন কেমন লাগলো।
*ব‌ইয়ের প্রচার করলাম* *ব‌ইয়ের প্রচার করলাম*
অনেক কয়েক মাস পর।



© রাজকুমার মাহাতো