গল্পের সাথে কি সত্যি বাস্তবের মিল নেই? নাকি দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোর প্রয়োজন?

দৃষ্টিভঙ্গি

রাজকুমার মাহাতো

gay-life-story-rajkumar-mahato-chatrak-bengali-blog-story-social-homophobia-lgbt-college-square-college-street
গল্পের সাথে কি সত্যি বাস্তবের মিল নেয়? নাকি দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোর প্রয়োজন?


সবেমাত্র একটা বিকেলের জন্ম হয়েছে। মেঘলা আকাশ। আবহাওয়া দপ্তরের ভবিষ্যতবানী বহুবার পাল্টেছে গত সপ্তাহ‌ থেকে। কখনও বলেছেন ভারী বৃষ্টি, আবার কখনও বলেছেন হালকা। কিন্তু সেই ভবিষ্যত বানীতে নিরাশার জল ঢেলে বৃষ্টি মুখ ঘুরিয়েছে কলকাতা থেকে।
আমি বসেছিলাম কলেজ স্কোয়ারের একটা বেঞ্চিতে। কাঠের আধভাঙা একটা পাটাতন। পেছনে লোহার বৃদ্ধ কাঠের রেলিং। মাথার উপর টিনের‌ ছাউনি, একটুখানি। সেও অনেক বৃদ্ধ, জরাজীর্ণ।
আমার পাশে একজন ষাটোর্ধ্ব বয়স্ক ভদ্রলোক বসে। তিনি ব‌ই পড়ছেন। স্বপ্নময় চক্রবর্তীর "হলদে গোলাপ"। আমি একবার দেখলাম তাঁর দিকে। তিনিও মুখটা তুলে তাকালেন আমার দিকে। বললেন " সত্যি কি অসাধারণ লিখেছেন। কত গভীরতা‌। "
হাসলাম‌। বুঝলাম, তিনি ব‌ইটিকে অনেক গভীরতা দিয়ে অন্তস্থ করছেন।
সামনে একদল ছেলে অনবরত ঝিলের চারপাশে দৌড়ে চলেছে। অন্য ভাষায় বললে " জগিং" করছে। আর একদল বড় পুকুরের ধারে‌ নেংটি পরে কসরত করছে। নেংটি মানে ওই জাঙ্গিয়া আর কি। আর আরও শুদ্ধ ভাষায় বলতে গেলে " অন্তর্বাস"...
আসলে তারা সবাই সাঁতারের ট্রেনিং নিতে এসেছে। একজন ট্রেনার‌ও আছেন।

হঠাৎ আমার চোখ গেল‌ তাদের‌ই একজনের দিকে। একটু আলাদা মনে হল‌ তাকে দেখে। একটু অন্যরকম। কাকু বুঝলেন আমি তাকে দেখে কিছুটা বিস্মিত হয়েছি। তাই তিনি বললেন " ওটা আসলে একটা মেয়ে। দেখেছেন কেমন ছেলেদের মত গঠন। ওকে ওইভাবেই তৈরি করেছেন ঈশ্বর। ওর ভবিষ্যতটা একবার চিন্তা করুন।" কাকুর গলার স্বর গর্বিত, ভীষণভাবে গর্বিত।
হাসলাম। কিন্তু কিছু বললাম না। কয়েক মিনিট‌ পর আমাদের সামনে দিয়ে একটি ছেলে‌ সামনের দিকে এগিয়ে গেল। একটু অন্যরকম, আলাদা। চলনে, শারীরিক গঠনে রয়েছে মেয়েলি ছাপ। একা একা উদাস‌ মনে হেঁটে চলেছে।
কাকু মুখটা তুলে তাকালেন। পরক্ষনেই কিছু একটা ভেবে‌ বললেন " কি অবস্থা দেখ। কেমন হাঁটছে দেখ। ঈশ্বর কি ভেবে যে এদের‌ বানিয়েছেন! ভবিষ্যত অন্ধকার। "
চমকে উঠলাম। কাকুর হাতের হলদে গোলাপের দিকে তাকিয়ে বললাম " কিন্তু আপনার হাতেও তো তারাই রয়েছে। আর আপনি বেশ গভীরে‌ গিয়ে পড়ছেন। "
কাকু হাসলেন, বললেন " ব‌ই আর‌ বাস্তব জীবনে বিস্তর ফারাক বাবা, অনেক....অনেকটা.."
বুঝলাম না, আসলে ব‌ইয়ে আর‌ জীবনে ফারাক।‌ নাকি দৃষ্টিভঙ্গিতে?